৬ দফা দাবিতে নন-ক্যাডার সুপারিশপ্রত্যাশীদের সারা দেশে মানববন্ধন

৬ দফা দাবিতে নন-ক্যাডার সুপারিশপ্রত্যাশীদের সারা দেশে মানববন্ধন

ছয় দফা দাবি আদায়ে ৪০তম বিসিএসে উত্তীর্ণ নন-ক্যাডার সুপারিশপ্রত্যাশীরা সারা দেশে মানববন্ধন করেছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার ‘৪০তম বিসিএস উত্তীর্ণ নন-ক্যাডার সুপারিশপ্রত্যাশী ও চাকরিপ্রার্থী বেকার ছাত্রসমাজ’–এর ব্যানারে সকাল ১০টা থেকে একযোগে দেশের আট বিভাগের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও গুরুত্বপূর্ণ স্থানে প্রতিবাদ সমাবেশ ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়।

গত ১৬ অক্টোবর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্য প্রাঙ্গণে আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশ ও মানববন্ধন কর্মসূচিতে জানানো ছয় দফা দাবির সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে সারা দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজে এ কর্মসূচি পালন করা হয়।

কর্মসূচিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যে আয়োজিত সমাবেশে যে ছয় দফা দাবি জানানো হয়, সেই দাবি দ্রুত সরকারি কর্ম কমিশনকে (পিএসসি) মেনে নিতে আহ্বান জানানো হয়। পিএসসি যদি ছয় দফা দাবি আগামী রোববারের মধ্যে মেনে না নেয়, তাহলে সারা দেশে লাগাতার কঠোর আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন চাকরিপ্রার্থীরা।

এর আগে ১৬ অক্টোবর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের সামনে বিসিএস নন-ক্যাডার নিয়োগের ক্ষেত্রে সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) ‘নতুন নিয়ম’ বাদ দিয়ে আগের পদ্ধতিতেই নিয়োগ দেওয়ার দাবিতে মানববন্ধন করেছেন ৪০তম বিসিএস পরীক্ষায় অপেক্ষমাণ নন-ক্যাডার প্রার্থীরা। ৬ দফা দাবি

প্রার্থীদের ছয় দফা দাবি হলো, বিজ্ঞপ্তির পরে ৪০-৪৪তম বিসিএস পর্যন্ত বিজ্ঞপ্তির তারিখওয়ারি নন-ক্যাডার পদ বিভাজনের মাধ্যমে পদসংখ্যা নির্ধারণের বেকার বিরুদ্ধ ও অযৌক্তিক সিদ্ধান্ত বাতিল, ৪০তম বিসিএস নন-ক্যাডারের পদ ৩৬, ৩৭ ও ৩৮তম বিসিএসকে দেওয়ার অযৌক্তিক সিদ্ধান্ত অবিলম্বে বাতিল,

করোনা মহামারিতে ক্ষতিগ্রস্ত ইতিহাসের দীর্ঘকালীন ৪০তম বিসিএসে উত্তীর্ণ নন-ক্যাডার অপেক্ষমাণ তালিকায় থাকা প্রার্থীদের মধ্য থেকে সর্বোচ্চসংখ্যক প্রার্থীকে নন-ক্যাডারে নিয়োগের সুপারিশ করা, যে প্রক্রিয়া অনুসরণ করে পিএসসি ৩৪-৩৮তম বিসিএস নন-ক্যাডার তালিকা প্রকাশ করেছে, সেই একই প্রক্রিয়ায় বর্তমানে উদ্ভূত সমস্যার সমাধান, ‘যার যা প্রাপ্য,

তাকে তা-ই দেওয়া হবে’—পিএসসির এমন বক্তব্যের সুস্পষ্ট ব্যাখ্যা ও বেকারত্ব সৃষ্টির অপপ্রয়াস বন্ধ করে বেকার বান্ধব নীতি গ্রহণ ও বাস্তবায়ন এবং গত এক যুগে পিএসসি যে স্বচ্ছ, নির্ভরযোগ্য ও বেকারবান্ধব প্রতিষ্ঠান ছিল, সেই ধারা অব্যাহত রাখা।

admin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *